পড়ালেখার নামে কি করছে স্কুল-কলেজের ছেলে-মেয়েরা?#BD #Students #Sex #Scandal #New_Video

পড়ালেখার নামে কি করছে স্কুল-কলেজের ছেলে-মেয়েরা?আধুনিক মননশীলতার নামে বর্তমান যুগের ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে নোংরামি ছড়িয়ে পড়েছে। তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। আগে যে নোংরামি সবার চোখের আড়ালে হতো,এখন তা হচ্ছে সবার সামনে। শুধু সামনে বললে কম বলা হবে,বলা ভালো ব্যস্ত রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে ইচ্ছাকৃতভাবে লোককে দেখানোর জন্যই এসব করা হচ্ছে।আধুনিকতার নামে নোংরামি আর বেয়াদবি এখন ফ্যাশান। বর্তমানে সিনেমায় নয় বাস্তবে ছেলে বাবা এক সাথে বসে মদ খায় ,নর্তকী নিয়ে নাচে।এটাই বর্তমান সমাজের মুক্তমনা পরিবারের সিম্বল।মেয়ে মাকে বয়ফ্রেন্ডকে বিয়ে করতে বললে মেয়ের জবাব,আমার সমাজ লাগবে না ও আমার পরিবার ,ধর্ম সমাজ।হ্যাঁ এগুলো হল আধুনিকতা মুক্তমনা আধুনিক বন্ধুতাপূর্ন পরিবারের চিএ।আপনার সন্তান এগুলো দেখে ভাবছে শিখছে এটাই বোধ হয় ঠিক।আজ মেয়েকে সানি লিওন জামা কিনে দিচ্ছেন,কাল বলবে মা আমি সানি লিওন হবো । তখন কি করবেন?কেন আজ আমাদের সমাজের ছাত্র-ছাত্রীদের এই পরিণতি কেন আজ আমাদের ছাত্র-ছাত্রীদের এত চারিত্রিক অধঃপতন। এখানে অনেকগুলো কারণ আছে হয়তো বা কারণগুলো বললে পরে আমাকে অনেকে অচল পয়সা বা সেকেলে ব্যাক মাইন্ডেড লোক হিসেবে আখ্যায়িত করবে।এই ভিডিওটা তৈরি করতেও আমার লজ্জা লাগছে তবুও সকলের সচেতনতার কথা বিবেচনা করেই কেবল এই ভিডিওটা তৈরি করছি। হয়তোবা আমার কথা গুলো শুনে অনেকেই বিরাগভাজন হবে। আজকাল যে ছেলের লুঙ্গি পরে ঘুমালে রাতে লুঙ্গিটার ঠিক থাকে না উত্তর,দক্ষিণ,পূর্ব,পশ্চিম ছাড়া যে আরো ছয়টা দিক আছে সেগুলো তারা জানে না অথচ তারাও আজ হাটু গেঁড়ে বসে হাতে গোলাপ নিয়ে ফিল্মি ষ্টাইলে প্রেম নিবেদন করে।যে অল্পবয়স্ক মেয়েটার এখনো পিরিয়ড শুরু হয়নি,শুরু হলেও যে মেয়েটার এই বয়সে পিরিয়ডের রক্ত দেখে ভয়ে চিৎকার করে উঠার কথা,যে মেয়েটা এখনো পায়জামার ফিতাটা ঠিক মতো বাঁধতে পারে না সেই মেয়েটা আজ তারই বয়সি একটা ছেলেকে বুকে জড়িয়ে ধরছে আর প্রকাশ্যে চুমু খাচ্ছে।ভাবতে পারেন দেশ কতোটা এগিয়েছে? আমরা কতটুকু আধুনিক হয়েছি?ক্লাশের বইগুলোতে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে যৌনতা।’বয়ঃসন্ধি’ কালের পাঠ দিতে গিয়ে তাদের অপ্রাপ্তবয়স্ক মাথায় ঢুকানো হচ্ছে এসব।ছেলে-মেয়েরা ক্লাশরুমে এগুলো একসাথে বসে পড়ছে।পড়ে পড়ে একে-অন্যের দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে হাসছে। বর্তমান শিক্ষায় তাদের জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে, এই এই ব্যাপারগুলা তোমার সাথে ঘটলে বুঝবা তোমার এখন বয়ঃসন্ধি চলছে ।এসময় এইসব বিষয়ে মোটেই লজ্জা পাবে না।বন্ধু-বান্ধবির সাথে শেয়ার করবে।হ্যাঁ, সত্যি তারা শিক্ষকদের কথা অক্ষরে অক্ষরে পালন করছে তারা এখন বয়ঃসন্ধি আসার আগেই সব কিছু শেয়ার সেরে ফেলেছে। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থায় এরাই সেই প্রজন্ম, যারা অপারেশান সার্চ লাইট কি জানেনা?জানেনা স্বাধীনতা দিবস কবে?জানেনা ভাষা দিবস কবে?!জানেনা ভাষা শহীদদের নাম?জানেনা মুক্তি যুদ্ধের সেক্টর কমান্ডদের নাম?জানেনা জাতীয় সঙ্গীতের রচয়িতার নাম?জানেনা রণসঙ্গীতের রচয়িতার নাম?এরা জানেনা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শেরে বাংলা ফজলুল হক,প মওলানা ভাষানীর নাম?এরা জানেনা ক্ষুদিরাম,তিতুমীরের নাম।এরা জানেনা খাদিজা,আয়েশা,ফাতিমার নাম কিন্তু এদের মোবাইলের ব্রাউজিং হিষ্ট্রি চেক করে দেখুন, দুনিয়ার সব পর্ণ সাইটে এদের বিচরন।এই যে ছেলে-মেয়েগুলো এতো আধুনিক হয়ে উঠছে, এর আল্টিমেইট রেজাল্ট কি জানেন?প্রেম করবে। লিভ টুগেদার করবে।ঘরে ঘরে পতিতা সৃষ্টি করবে।মেয়েগুলার পেটে যখন একসিডেণ্টলি তাদের বয়ফ্রেন্ডের ফসল চলে আসবে,তখন তারা বিয়ের জন্য বয়ফ্রেন্ডকে প্রেশার দিবে।আজকে যে ছেলেগুলা হাটু গেঁড়ে ফিল্মি ষ্টাইলে প্রপোজ করে রোমিও সাজছে,সেদিন সেইসব রোমিওরা তাদের প্রেগন্যান্ট গার্লফ্রেন্ডকে ক্যারিয়ারের অজুহাত দেখাবে,বাবা-মা’র অজুহাত দেখাবে,সমাজের অজুহাত  দেখিয়ে বিয়ে করতে পারবেনা বলে জানাবে।আমাদের প্রগতিশীল,মুন্তমনা সমাজও মেয়েটাকে আর নেবেনা।তারাও তখন তাকে বলবে- ‘পতিতা।’বদচলন,নোংরা,কুলটা,কলংকিনী আরো কতো কি !মেয়েটা একটা সুইসাইড নোট লিখবে।এরপর বিষ খেয়ে কিংবা ফ্যানের সাথে ঝুলে দায়মুক্তি করে যাবে।অথবা অন্য কারো সাথে আবার নিজের দুশ্চরিত্র টাকে ঢেকে চরিত্রবান হয়ে আরেকজনের জীবনে প্রবেশ করবে।তাই বলছি নিজের স্বভাব চরিত্র পাল্টান।নিজের বিবেক কে সচেতন করুন।।দেখবেন সমাজটা আপনা আপনিই পাল্টে যাবে।দেশের এই সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নোংরামি আস্তে আস্তে উঠে যাবে।কিন্তু আগে নিজেকে বদলাতে হবে।কারণ নিজেকে পাল্টাতে হলে আগে নিজেকে ভালো করে চিনুন। দেখবেন আপনার বহিরাগত চিন্তাধারা এমনিতেই পালটে যাবে ইনশাআল্লাহ।একটু দেখা, কিছুটা পরিচয়, মোবাইলে কথোপকথন আর এক সময় পার্কে বসে আড্ডা বা সিনেমা দেখা। আর এভাবেই একটি ছেলে বা মেয়ের সাথে সৃষ্টি হয় প্রেমের সর্ম্পক। পরবর্তীতে এই প্রেমের আড়ালে বিভিন্ন পার্ক বা থিয়েটারে বসে বাদাম খাওয়া, ছোলা খাওয়ার আড়ালে যা হচ্ছে তা রীতিমত পশ্চিমাদেরও হার মানিয়েছে বাংলাদেশ।প্রেম ভালোবাসার নামে এখানে সেখানে অবাধ মেলামেশা আর ছেলে মেয়ের যৌন চাহিদা হরহামেশাই পূরণ হয়ে যাচ্ছে। কখনো কখনো স্কুল কলেজের ক্লাস ফাঁকি দিয়ে চলে যাচ্ছে আবাসিক কোন হোটেলে।বাংলাদেশে সমবয়সীদের সাথে ভালোবাসার বিষয়টি বেশি লক্ষনীয়। যার কোন ভবিষ্যত নাই। ছেলেটির যোগত্যা অর্জনের বহু আগেই মেয়েটির পাড়ি জমাতে হয় শ্বশুরবাড়ি, অতঃপর সন্তানের জননী হয়ে দিব্বি সংসারি হয়ে যায়। অথচ এরাই লেখাপড়া নামে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে সমবয়সীদের সাথেই অবাধ মেলামেশায় জড়িয়ে পড়ে।কখনো কখনো গর্ভবতীও হয়ে পড়ে। আর পরিবারকে সে কখা না জানাতে পেরে অনেকেই বেছে নেয় আত্মহত্যার পথ। মূলত, এই প্রেমের আড়ালে চলছে নারী দেহ ভোগ আর উভয়ের যৌন চাহিদা পূরণ।নিজেদের শারীরিক চাহিদা মেটানোর জন্য মোটামুটি একটি প্রেমিক বা প্রেমিকা হলেই হয়। যার মন বা আচরণ ভালো হোক না হোক দেহটা তার সুন্দর হলেই আজকাল প্রেম হয়ে যাচ্ছে।

রাজধানীর বিভিন্ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় ও পার্ক ঘুরে দেখা গেছে প্রেমের নামে তারা লুটোপুটি খাচ্ছে একজন আরেকজনের উপরে।

Beautiful girls for every taste and ready for anything. Girls love to entertain people and bring joy. Their charms cause a storm of testosterone and seed eruption, like a volcano. Even if your volcano is sleeping, our girls will Wake in you the full force of the sexual giant. We are able to restore youth and to initiate even a pensioner!.

Click here

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s